ডোমেইন নেম কি? কেন আমরা ডোমেইন নেম রেজিস্ট্রেশন করব?

  • Home
  • Domain
  • ডোমেইন নেম কি? কেন আমরা ডোমেইন নেম রেজিস্ট্রেশন করব?

আমাদের অনেকের মনে ডোমেইন নেম নিয়ে নানা ধরনের প্রশ্ন রয়েছে যেমন : ডোমেইন মূলত কি, এর কাজ কি, এটা দিয়ে কি করা হয় এবং এটা কোথা থেকে কিনতে হয়। আজকে আমরা আলোচনা করব ডোমেইন এর কাজ কি, কোথা থেকে কিনবেন এবং কী ধরনের কাজ। আশা করছি শেষ পর্যন্ত পড়েন তাহলে ডোমেইন সম্পর্কে আপনার যত প্রশ্ন আছে তা সহজেই পরিস্কার হয়ে যাবে।

ডোমেইন (Domain) একটি ইংরেজি শব্দ  এর বাংলা অর্থ হলো স্থান বা ঠিকানা যা ইন্টারনেট জগতে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। যদি সহজ ভাবে বলতে যাই, উদাহরণস্বরূপ আপনার একটি বাড়ি আছে কিন্তু বাড়িটা কোথায় আছে এবং বাড়ির নাম কি সেটা সম্পর্কে কেউ জানে না, এখন আপনার বাড়িতে পৌঁছাতে হলে, তাহলে প্রথমে প্রয়োজন আপনার বাড়ির নাম তারপর আপনার বাড়ির ঠিকানা। কেউ যদি আপনার বাড়ির নাম এবং ঠিকানা সঠিকভাবে জানে তখনি আপনার বাড়িতে পৌঁছাতে পারবে তাহলে এখানে দুটি বিষয় খুব গুরুত্বপূর্ণ প্রথমে আপনার বাড়ির নাম এবং দ্বিতীয়টি আপনার বাড়ির ঠিকানা। ঠিক তেমনি ইন্টারনেটের প্রতিটি ওয়েবসাইটের একটি নির্দিষ্ট নাম রয়েছে আর সেই নাম কে ডোমেইন বলা হয়।

ধরুন, আপনি একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান করলেন এবং একটি সুন্দর ও ইউনিক নাম দিলেন যাতে করে মানুষ  সহজেই বুঝতে পারে আপনি কি ধরনের সেবা দিতে চাচ্ছেন। পরবর্তীতে মানুষজন যখন আপনার সেবা নিতে যাবে তখন আপনার দেওয়া নামের মাধ্যমে খুব সহেজেই আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান কে খুজে পাবে । উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়ঃ — প্রথমআলো, প্রান, RFL, তীর, যমুনা, বসুন্ধরা এর কথা। এগুলো মূলত এক একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এর নাম যা দেখে আমরা সহজেই বুঝতে পারি তারা কি ধরনের সেবা দিয়ে থাকে এবং কিভাবে মানুষজন তাদের ঠিকানা সহজেই খুঁজে পায়।

ঠিক যে নামের মাধ্যমে আপনার পছন্দের ওয়েবসাইটটি মানুষ জন খুজে পাবে সেটাই হলো ডোমেইন। এই ডোমেইন নেমই আপনার ওয়েবসাইটকে অনন্যভাবে আইডেন্টিফাই করবে এবং সেই সাথে সবাই এ নাম ব্যবহার করে আপনার ওয়েবসাইটটিকে চিনবে এবং একসেস করবে ।

ডোমেইন নেম মূলত এমন একটি ঠিকানা, যেই ঠিকানার মাধমে আপনি আপনার প্রতিষ্ঠান এর ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন। এই ডোমেইন নেমের জন্য কম্পিউটার একটি আইপি অ্যাড্রেস ব্যবহার করে। আইপি এড্রেস বলতে বোঝানো হচ্ছে ইন্টারনেট প্রটোকল। আইপি অ্যাড্রেস জন্য একটা সিরিজ অফ নাম্বার থাকে অর্থাৎ কিছুসংখ্যক নাম্বার থাকে যেটা ওই ডোমেন নেম এর জন্য জেনারেট হয় । আইপি অ্যাড্রেস এর মাধ্যমে আপনার ডোমেইন নেম ইন্টারনেটে জায়গা তৈরি করে নেয়।প্রত্যেক ডোমেইন নেম এর একটি নির্দিষ্ট আইপি অ্যাড্রেস (IP Address) থাকে। যেমনঃ 66.220.159.255. সাধারণত আইপি অ্যাড্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট মনে রাখা কষ্টকর। তাই মনে রাখার সুবিধার জন্য আইপি অ্যাড্রেস এর পরিবর্তে ডোমেইন নেম ব্যবহার করা হয়।

চলুন, আমরা ডোমেইন নাম এর কিছু ব্যবহার দেখে নেইঃ- https://www.google.com/ – https://www.youtube.com/ – https://www.facebook.com/ – এখানে গুগল, ইউটিউব ও ফেসবুক কে আমরা সাধারণত আইপি অ্যাড্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট মনে রাখা কষ্টকর হওয়ার কারনে ডোমেইন নাম দিয়ে সহজেই খুঁজে পাই।

ডোমেইন শুধুমাত্র .com Extension দিয়েই হবে তা কিন্তু নয়। মূলত উদ্দেশ্য উপর ভিত্তি করে এগুলো ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আশা করি পরবর্তী উদাহরণ গুলো দিয়ে বুঝতে পারবেন। যেমনঃ

সাধারন কাজ বা ব্যবসার জন্য .com (https://filluphosting.com/) Extension ব্যবহার করা হয়।

অরগানাইজেশনের এর জন্য .org (https://www.wikipedia.org/) Extension ব্যবহার করা হয়।

এডুকেশনাল-শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এর জন্য .edu ( https://www.harvard.edu/) Extension ব্যবহার করা হয়।

গভর্নমেন্টাল-রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান এর জন্য .gov (https://www.bluehouse.gov/) Extension ব্যবহার করা হয়।

ইনফরমেশন সাইটের জন্য এর জন্য .info (http://www.bangladesh.info/) Extension ব্যবহার করা হয়।

নেটওয়ার্কিং সাইটের জন্য এর জন্য .net (https://www.soundtrack.net/) Extension ব্যবহার করা হয়।
এই মাত্র যেসব ডোমেইনের এর কথা বলা হয়েছে সেগুলোর সবই Top Level ডোমেইন। আপনি যদি এগুলো আপনার ওয়েবসাইটে ব্যবহার করতে চান তাহলে আপনাকে টাকা দিয়ে Registration বা কিনতে হবে। ডোমেইন নেম ব্যবহার করার আগে যে বিষয়গুলো নিয়ে সব সময় সচেতন এবং মাথায় রাখতে হবে সেটা হলো আপনি যে ডোমেইন নিচ্ছেন অথবা যে ডোমেইন আপনার প্রতিষ্ঠানের জন্য কিনেছেন সেটা রেজিস্টার্ড কিনা, কেননা একই নামের ডোমেইন দুইজন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান একসাথে ব্যবহার করতে পারবে না । ডোমেইন ওয়েবসাইটের একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ অংশ তাই একটি ডোমেইন নেম লাগবে।

এবার আসা যাক ডোমেইন কোথা থেকে কিনবেন অর্থাৎ আপনি যে ডোমেইন নেম দিয়ে আপনার প্রতিষ্ঠানটি তৈরি করবেন। কোন প্রতিষ্ঠান বা কোথা থেকে কিনবেন, বর্তমানে বাংলাদেশ অনেকগুলো ডোমেইন হোস্টিং প্রোভাইডার কোম্পানি রয়েছে তারা বেশ ভালই সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছে দেশ এবং দেশের বাইরে। প্রোভাইডার ভেদের কারনে ডোমেইন এর দাম কম বেশি হয়ে থাকে । সাধারনত এই সব ডোমেইন এর মূল্য ৮০০-১২০০ টাকার মধ্যে হয়ে থাকে এক বছরের জন্য। তবে যারা এক বছরের জন্য কিনে থাকেন তাদের কে ট্রেড লাইছেন্স এর মতো প্রতি বছর রিনিউ করতে হয়।

এছাড়া, সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে ব্যাবহারকারীদের সুবিধা মাথায় রেখে বিভিন্ন ধরনের Extensions এসেছে । চাইলে Targeted Niche Select করেও নির্ধারিত Extensions নেয়া যায়। যেমন .health; .club; .fun; .cat; .design; .shop; .service ইত্যাদি।

ইন্টারনেটে যত ওয়েবসাইট রয়েছে তার ৫২ শতাংশই .com ডোমেইন ও অন্যান্য ডোমেইন নিয়ে বিভিন্ন Werbsite অথবা Bolg তৈরি করা হয়েছে। তার মানে হলো মানুষ সাধারণভাবেই এটি ভেবে থাকেন, যে কোন ওয়েবসাইট একটি .com ডোমেইন Extensions দিয়ে শেষ হয়। তাই যদি আপনার সুযোগ থাকে তাহলে .COM ডোমেইন Extensions ব্যবহার করাই আপনার জন্য সঠিক হবে।
তো এখন যানা যাক কে সর্বপ্রথম ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন করেছিলেন।

প্রথম বানিজ্যিক ডোমেইন নাম TLD .com , ১৫ মার্চ ১৯৮৫ সালে প্রথম বাণিজ্যিকভাবে ডট কম ডোমেইন নেম, ক্যামব্রিজের কম্পিউটার ফার্ম সিম্বোলিক তাদের ওয়েব সাইট Symbolics.com এ ব্যবহার করে। পরবর্তীতে, ডিসেম্বর, ২০০৯ সালে তারা ১৯০ মিলিয়ন ডোমেইন নেম রেজিস্ট্রেশন করে।

Leave a Reply